জঙ্গল থেকে হঠাৎ বেরিয়ে আসলো বিশালাকার বিরল প্রজাতির লাল কোবরা সাপ, ভাইরাল ভিডিও

স্যোশাল মিডিয়ায় মাঝেমধ্যেই ভিডিও ভাইরাল হতে দেখা যায়।তাতে তেমন হাসি মজার খোড়াক থাকে,তেমন‌ই থাকে সুপ্ত প্রতিভার আত্মপ্রকাশ‌ও।

আবার কখোনো অবিশ্বাস্যকর ঘটনার বিবরণ‌ও থাকে। আবার এমন ভয়ানক সব ভিডিও দেখা যায় যা দেখে ঘুম উড়ে যায়।

যেমন, বিশালাকৃতি অজগরের সাপের সাথে খেলছে শিশু কিংবা গোয়ালঘরে গোরুর পায়ে জড়িয়ে রয়েছে বিষধর সাপ।

আবার মাটি খুঁড়তেই সাপের ডিম পাওয়ার খবর অথবা পোষা কুমিরের মুরগি মেরে ফেলার ঘটনা। এজাতীয় ভয়ঙ্কর ভয়ঙ্কর খবর পড়ে শিহরিত হলেও এসবেই বেশী ভিউজ আসে। এই খবর‌ই দর্শক দেখতে পছন্দ করেন।  সম্প্রতি তেমনই একটি ভিডিও ভাইরাল হয়েছে। যদিও এবারের গন্তব্য ভিয়েতনাম। সেখানেই একটি বিরল প্রজাতির লাল রঙের সাপ ধরেছেন বাসিন্দারা। ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে সকলে ছুটে চলেছেন মাঠের মধ্যে কারণ তাঁরা একটি‌ লাল সাপ দেখেছেন। সাপটি ঘাসে ভরা মাঠের মাঝে হারিয়ে গিয়েছে। তাঁকে খুঁজতেই এই দৌড়ঝাঁপ। একসময় দেখা গেল সাপটিকে ধরেও ফেলেছেন তাঁরা। একটি কাটা শুকনো গাছ সড়াতেই বেরিয়ে আসে লাল টকটকে একটি সাপ।

সেটির লেজ ধরে টেনে বার করার পর তাকে ঘাসে ছাড়া হয়। সাপটিও ছাড়া পেয়ে ফের ছুট লাগায়। একটি নালায় নেমে যায় সাপটি। জলের মধ্যে লাল রঙা সাপ এগিয়ে চলছে কিলবিলিয়ে। ভিডিওটি এতটুকুর‌ই। এরপর সাপটিকে নিয়ে তাঁরা কি করল জানা যায়নি। ভিয়েতনাম দেশে সাপ পুড়িয়ে খাওয়ার চল রয়েছে। তারাও কি সাপটিকে নিজেদের ক্ষুন্নিবৃত্তি সাধনে লাগিয়েছেন? জানা নেই। ভিডিওটি পোস্ট করা হয়েছে ‘স্নেক ক্যাচার্স’ নামক একটি ইউটিউব চ্যানেল থেকে। দুই বছর আগে পোস্ট করা হয়েছে ভিডিওটি। ইতিমধ্যেই প্রায় পঞ্চাশ লাখ মানুষ দেখে ফেলেছেন ভিডিওটি।

তবে আশ্চর্যের বিষয় হয় কমেন্টবক্সে কেউ কিন্তু মানতে চাইছে না যে সেটি‌ আসলে বিরল‌ প্রজাতি লাল সাপ। অবিশ্বাস ফুটে উঠছে তাদের কমেন্টে। তাঁরা লিখেছেন, সাপটিকে আগেই পাকরাও করেছিল ওই মানুষগুলোর। তারপর লাল রঙের স্প্রে পেইন্ট করে ছেড়ে দেয় মাঠে। যাতে ফের তাকে ধরতে পারে। ভিডিও বানানোর জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে একাজ করেছে তাঁরা। নেটিজেনদের দাবি, সাপের মতো একাচোরা প্রাণীকে উত্যক্ত করে খারাপ কাজ করা হয়েছে। তাঁদের শাস্তি দাবি করছেন নেটিজেনরা।