মায়ের মতোই ছেলের মাথাতেও দুষ্টু বুদ্ধিতে ভরা, শাক্যর সঙ্গে মিঠাইয়ের মিল পেয়ে শাক্য কে মিঠাই এর যোগ্য ছেলে বলল নেটিজেনরা

গত দু’বছর ধরে বাংলা টেলিভিশনের পর্দায় যে ধারাবাহিকের জনপ্রিয়তা সবচেয়ে বেশি ছিল বর্তমানে সেই ধারাবাহিক শেষের পথে।

টানা দুবছর এই ধারাবাহিক জি বাংলার পর্দায় চলার পরেই বাংলার প্রত্যেকের ঘরের মেয়ে হয়ে উঠেছে মিঠাই। মিঠাই ধারাবাহিকে অভিনয়,

করেই অভিনেত্রী বিপুল পরিমাণ জনপ্রিয়তা এবং দর্শকের ভালোবাসা পেয়েছেন। যা তিনি এর আগের ধারাবাহিকে অভিনয় করেও পাননি।

আর এটাই অভিনেত্রী সৌমিতৃষা কুণ্ডুর মিঠাই ধারাবাহিকের সার্থকতা। ইতিমধ্যে ধারাবাহিকে মিঠাই রানীর মৃত্যু দেখানো হয়েছে। তারপরই মনোহরাতে অনেক বদল ঘটেছে। বেশ কয়েক বছর কেটে গিয়েছে। শাক্য নিজের মতো করে বেড়ে উঠছে। বাবার শাসন, পরিবারের বাকিদের আদর ভালবাসায় বড় হয়ে উঠছে সে। এর মধ্যেই মনোহারাতে এসেছে শাক্যর নতুন শিক্ষিকা। যাকে দেখতে অবিকল মিঠাইয়ের মত। তার নাম মিঠি। দেখতে মিঠাইয়ের মতো হলেও হাবভাব চলচলনে মিঠাইয়ের সাথে কোন তুলনাই হয় না তার। শাক্যর চরিত্রে অভিনয় করছে জনপ্রিয় শিশু তারকা ধৃতিষ্মান চক্রবর্তী।

ইতিমধ্যেই দেখানো হয়েছে মিঠাই এর মতো তার ছেলের মাথাও দুষ্টু বুদ্ধিতে ভরা। তার দুষ্টুমির জন্য জেরবার হয়ে গিয়েছে স্কুলের টিচাররা। তাই জন্য মাঝেমধ্যেই সিদ্ধার্থ কে স্কুল থেকে শাক্যর ব্যাপারে অভিযোগ করা হয়। আর সেই জন্য শাক্যকে আর স্কুলে রাখা হবে না। আর সিদ্ধার্থ ও সিদ্ধান্ত নিয়েছে শাক্যকে এবারে নর্থ বেঙ্গল এর একটি বোর্ডিং স্কুলে পাঠিয়ে দেবে। কিন্তু শাক্যর শৈশব কিছুতেই নষ্ট হতে দেবে না মিঠি। তার জন্য শাক্যর সামনে ঢাল হয়ে দাঁড়িয়েছে তার নতুন পার্টনার।

মিঠাই চ্যালেঞ্জ নিয়েছে শাক্যকে সে দুদিনের মধ্যে সবকিছু শিখিয়ে দেবে। এর মধ্যে ভাইরাল হয়েছে একটি ভিডিও। যেখানে দেখা যাচ্ছে মিঠাই যেমন নানান রকম দুষ্টুমি দিয়ে মনোহরাকে সবসময় মাথায় করে রাখতো তেমনি শাক্যও নানান রকম দুষ্টুমি দিয়ে মাতিয়ে রাখছে সকলকে। আসলে মিঠাই ধারাবাহিককে একবার দেখানো হয়েছিল মিঠাই ভূত সেজে সিদ্ধার্থ কে ভয় দেখিয়েছিল। এবারে শাক্য ও নিজের স্কুলের টিচারকে ভূত সেজে ভয় দেখালো। এমনকি স্কুলের খাতায় নকল কাঁকড়া বিছা দিয়েও ভয় দেখিয়েছে সে। আর এতে মিঠাই এবং শাক্যর মধ্যে অনেক মিল খুঁজে পেয়েছেন নেটিজেনরা। এবার ভক্তরা অপেক্ষা করে আছে এর পরের পর্ব গুলো দেখার জন্য।