বেসুরো সুরে গান গেয়ে বলিউড গানের রানীকে তাক লাগিয়ে দিলেন নদিয়ার ছেলে প্রাঞ্জল বিশ্বাস, তুমুল ভাইরাল ভিডিও

‘আমি ভবঘুরেই হবো এটাই আমার অ্যাম্বিশন’ এমন‌ই খানিকটা অ্যাম্বিশন রয়েছে প্রাঞ্জল বিশ্বাসের। তাঁর ইচ্ছে ফকির হ‌ওয়ার।

একদিন হারিয়ে যাওয়া সাইকেল খুঁজতে খুঁজতে এক ফকির বাবার সাথে আলাপ হয় তাঁর। সেই ফকিরবাবাই ওর হাতে তুলে দেয় দোতারা।

আর সেটাই এখন সবসময়ের সঙ্গী। জীবনদর্শনের এমন পাঠ সে পেয়েছে যে বড় হয়ে ‘ফকির’ হওয়ার স্বপ্নই দেখে এই ছেলেটি।

তার গান শুনে হারিয়ে যান সকলেই। পশ্চিমবঙ্গের প্রত্যন্ত গ্রাম থেকে উঠে আসা এক বাচ্চা ছেলেই বর্তমানে সুপারস্টার সিঙ্গারের মঞ্চ মাতাচ্ছে। তাঁকে তার ভবিষ্যৎএর জন্য জায়গা করে দিচ্ছে সুপারস্টার সিঙ্গার। প্রতিভাকে গোটা দেশের সামনে নিয়ে আসার ক্ষেত্রে রিয়্যালিটি শোগুলির জুরি মেলা ভার। বহু বছর ধরে সেই কাজটাই করে চলেছে সুপার স্টার সিঙ্গার। সম্প্রতি শেষ হয়েছে এই শোয়ের দ্বিতীয় সিজন। জনপ্রিয় সোনি চ্যানেলের এই গানের রিয়্যালিটা শোয়ে বিচারকের আসনে রয়েছেন অলকা ইয়াগনিক,

হিমেশ রেশমিয়ার মতো সঙ্গীতের মহারথীরা। প্রাঞ্জল ইতিমধ্যেই সকলের মাঝে নিজের জায়গা করে নিতে পেরেছে। তার গানে রয়েছে মাটির টান। তাঁর কথাবার্তা, পোশাক‌আশাকেও রয়েছে সেই ছোঁয়া। প্রতিটি এপিসোডে ধুতি পাঞ্জাবি আর দোতরা হাতে নিয়ে হাজির হয় সে। এটাই তাঁর স্টাইল স্টেটমেন্ট। বেছে নেয় হারিয়ে যাওয়া গান, যে গান শুনলে মনে পড়ে প্রকৃতির কথা, গ্রামের ফেলে আসা মেঠো পথ আর টলটলে জলের পুকুরের কথা। এদিনের এপিসোডে প্রাঞ্জল,

গেয়েছে ‘মেরি মেহেবুব কায়ামত হোগি’ গানটি। এই এপিসোডে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত হয়েছিলেন আশা ভোঁসলে। প্রাঞ্জলের গান শুনে অভিভূত হয়ে যান আশাজি। প্রশঃসায় ভরিয়ে দেন তাঁকে। প্রশংসা করছেন বাকি বিচারক ও দর্শকরাও। আর্কাইভ সিঙ্গারস নামক ইউটিউব চ্যানেল থেকে ভিডিওটি পোস্ট করা হয়েছিল। পাঁচ দিন আগে পোস্ট করা ভিডিওটি ইতিমধ্যেই দুই হাজারের বেশি মানুষ দেখে ফেলেছেন। লাইক করেছেন এগারো জন। কমেন্ট করে প্রাঞ্জলকে উৎসাহ দিয়েছেন নেটিজেনরা।